সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ১০:৫৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
ফরিদপুরের আদিবাসীদের শিক্ষা কর্মসংস্থান ও বাসস্থানের নিশ্চয়তা  দাবী  জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সংসদের সহ-সভাপতি আপেল মাহমুদ সহ- সাধারণ সম্পাদক রাহাত বোররচর ইউনিয়নে প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার ১০কেজি চাউল পেলেন দুই হাজার ২৪৫টি পরিবার ভেজাল হলেই আমাকে ফোন দেবেন ওসি শাহিনুজ্জামান খান গফরগাঁও থানা গফরগাঁওয়ে ব্রহ্মপুত্র নদে নৌকা ডুবি সাবেক বিজিবি সদস্য নিখোঁজ যশোর গোয়েন্দা(ডিবি)এর অভিযানে গ্রেফতার-০৪ ময়মনসিংহে ভারতীয় দেড়শত বস্তা চিনি উদ্ধার ; মিনি ট্রাক সহ এক চোরাকারবারি আটক কুষ্টিয়ায় বিজিবি’র অভিযানে ক্রিষ্টাল মেথ আইস উদ্ধার ভাঙ্গায় প্রবাসীর জমি দখলের অভিযোগ ফরিদপুরে সাতার প্রশিক্ষণ ও প্রতিযোগিতাঃ সনদ  বিতরণ 
নোটিশঃ
২৪ ঘন্টায় লাইভ খবর পেতে চোখ রাখুন প্রতিদিনের বাংলাদেশ ওয়েবসাইটে

এমপি আনারকে আগেও তিনবার হত্যার পরিকল্পনা হয়: হারুন

Reporter Name / ১০ Time View
Update : শনিবার, ২৫ মে, ২০২৪, ১০:৩৬ পূর্বাহ্ন

নিজস্ব  প্রতিবেদক: ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিম আনারকে এর আগেও তিনবার হত্যার চেষ্টা করা হয়েছিল বলে জানিয়েছেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) অতিরিক্ত কমিশনার (গোয়েন্দা) মোহাম্মদ হারুন-অর-রশীদ৷ তিনি বলেন, গত জানুয়ারি মাসেও কলকাতায় একবার হত্যার পরিকল্পনা সাজায় হত্যাকাণ্ডের মাস্টারমাইন্ড আক্তারুজ্জামান শাহিন ও আমানউল্লাহ ওরফে শিমুল ভূঁইয়া। কিন্তু বার বার তাদের পাতানো ফাঁদে পা না দেওয়ায় বেঁচে যান সংসদ সদস্য আনার। শনিবার (২৫ মে) রাজধানীর মিন্টো রোডে গোয়েন্দা কার্যালয়ের কনফারেন্স রুমে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন মোহাম্মদ হারুন অর রশিদ।

হারুন অর রশীদ বলেন, হত্যাকাণ্ডের মদতদাতা আক্তারুজ্জামান শাহিন গত ৩০ এপ্রিল কলকাতায় তিনজনকে নিয়ে যান। সেই দলে একজন নারীও ছিলেন। কিলিং মিশন বাস্তবায়নে পূর্ব বাংলা কমিউনিস্ট পার্টির নেতা আমানুল্লাহ আমান ওরফে শিমুল ভুঁইয়াকে বুঝিয়ে দিয়ে শাহিন ১০ মে পর্যন্ত কলকাতায় অবস্থান করে দেশে চলে আসেন। গ্রেপ্তার আসামিদের কাছ থেকে আমরা বেশকিছু চাঞ্চল্যকর তথ্য পেয়েছি। যেহেতু ভারতীয় পুলিশ আমাদের এখানে কাজ করছে। তাদের কাজ শেষ হলে আমরাও কলকাতায় চলে যাব।

কী কারণে এমপিকে হত্যা করা হয়েছে? এমন প্রশ্নের জবাবে হারুন অর রশিদ বলেন, এই হত্যার পেছনে অনেকগুলো কারণ থাকতে পারে। কী কারণে হত্যা করা হয়েছে, সেটি এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। হত্যার মূল কারণ তদন্ত শেষে বলা যাবে। অতিরিক্ত কমিশনার আরও বলেন, আগেও সংসদ সদস্য আনোয়ারুলকে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছিল। সর্বশেষ বাংলাদেশের দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগেও হত্যার চেষ্টা করেছিল। তখন তারা ব্যর্থ হয়েছে। দ্বিতীয়বার চলতি বছরের জানুয়ারি মাসের ১৭ থেকে ১৮ তারিখ পর্যন্ত আনোয়ারুল কলকাতায় অবস্থান করেন। সেই সময়ে হত্যাকারীরা তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে কলকাতায় যায়। কিন্তু হোটেলে থাকার কারণে সেই চেষ্টাও ব্যর্থ হয়। তৃতীয় দফায় তারা হত্যা করতে সফল হয়েছে।

ডিবিপ্রধান আরও বলেন, হত্যার আগে তাদের (হত্যাকারীদের) পরিকল্পনা ছিল সংসদ সদস্য আনোয়ারুলকে জিম্মি করে ব্ল্যাকমেইল করা। এরপর তার আপত্তিকর ছবি তুলে দুইদিন ব্ল্যাকমেইল করে হুন্ডির মাধ্যমে এবং কলকাতায় থাকা তার বন্ধুদের কাছ থেকে তার মাধ্যমে মোটা অঙ্কের টাকা আদায় করা।

কিন্তু আনার কলকাতার ভাড়া করা ওই ফ্ল্যাটে যাওয়ার পরে তার মুখে ক্লোরোফর্ম (চেতনানাশক) ব্যবহার করায় তিনি জ্ঞান হারান। অজ্ঞান অবস্থায় আনারের আপত্তিকর ছবি তোলা হয়। তবে হত্যাকারীদের মূল টার্গেট ছিল আনারকে হত্যা করা। কিন্তু এর আগে তার কাছ থেকে অর্থ আদায় করতে চেয়েছিল। তিনি বলেন, সংসদ সদস্য আনার হত্যার ঘটনা তদন্তে ভারতীয় পুলিশের একটি দল ঢাকায় কাজ করছে। পাশাপাশি আমাদের হাতে গ্রেপ্তার আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদ ও প্রযুক্তিগত তথ্য বিশ্লেষণ করে আমরা দুটি বিষয় পেয়েছি। দুটি গ্রুপ এখানে কাজ করেছে। একটি গ্রুপ মদদ দিয়েছে আরেকটি গ্রুপ হত্যাকাণ্ড বাস্তবায়নে কাজ করেছে। স্বর্ণ চোরাচালান চক্রের কোনো সম্পৃক্ততা আছে কি-না? জানতে চাইলে ডিবিপ্রধান বলেন, নির্দিষ্ট কোনো কিছুই বলা যাবে না। তবে অনেকগুলো বিষয় আছে। তদন্ত শেষ করে আমরা আপনাদের জানাতে পারবো।

হত্যার ঘটনায় কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি – কিসের ভিত্তিতে হত্যার কথা বলা হচ্ছে? সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে হারুন বলেন, আমরা অনেক তথ্য-প্রমাণ পেয়েছি। তদন্তের স্বার্থে এখনই প্রকাশ করছি না। প্রমাণ পেয়েছি বলেই কলকাতায় হত্যা মামলা হয়েছে। আমাদের দেশে একটি মামলা হয়েছে। কলকাতায় মামলাটি সিআইডি তদন্ত করছে। নিশ্চই তারা আলামত পেয়েছে। কলকাতায় দায়ের হওয়া হত্যা মামলার তদন্তে আমারও যাব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Developer Ruhul Amin