বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ০৯:৪১ অপরাহ্ন
নোটিশঃ
২৪ ঘন্টায় লাইভ খবর পেতে চোখ রাখুন প্রতিদিনের বাংলাদেশ ওয়েবসাইটে

কুমারখালীর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অনিয়ম

Reporter Name / ৬৫ Time View
Update : বুধবার, ২৫ জানুয়ারী, ২০২৩, ৩:৩২ অপরাহ্ন

মোঃ জিয়াউর রহমান কুষ্টিয়া প্রতিনিধিঃ

নিয়োগ বাণিজ্যসহ নানা অনিয়ম ঢাকতে বারবার এডহক কমিটি গঠনের অভিযোগ উঠেছে কুষ্টিয়া কুমারখালীর যদুবয়রা ইউনিয়নের উত্তর চাঁদপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ আলীর বিরুদ্ধে। প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে এমন অনিয়মের অভিযোগসহ নিয়মিত পরিচালনা পরিষদ কমিটি গঠনের দাবিতে রোববার সকালে ইউএনওর কার্যালয়ে প্রায় ৮৬ জন অভিভাবক একটি লিখিত অভিযোগপত্র জমা দেন।
লিখিত অভিযোগে অভিভাবকরা জানান, ২০২১ সালের জুলাই মাস থেকে বিদ্যালয়ে এডহক কমিটি শুরু হয়। এডহক কমিটির সুযোগ নিয়ে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ আলী গাঁয়েবী নিয়োগ বাণিজ্য সহ নানান অনিয়ম করে চলেছেন। তাঁর অপকর্ম চাপা রাখতে পছন্দের ব্যক্তিদের সভাপতি বানিয়ে বিদ্যালয়ে পরপর তিন বার এডহক কমিটি গঠন করেছেন প্রধান শিক্ষক। চলমান এডহক কমিটির মেয়াদ আগামী মার্চ মাসে শেষ হওয়ার কথা। এরই মাঝে চতুর্থবারের মত এডহক কমিটি গঠন করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন প্রধান শিক্ষক। কিন্তু অভিভাবকরা বিদ্যালয়ের অবকাঠামোগত উন্নয়ন ও শিক্ষার মানোন্নয়নে নিয়মিত পরিচালনা পরিষদ গঠনের দাবি জানান লিখিত অভিযোগ।

অভিভাবকদের অভিযোগ অস্বীকার করে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ আলী বলেন, মহামারি করোনা ভাইরাস ও এলাকার আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি অস্বাভাবিক থাকায় এতোদিনেও নিয়মিত কমিটি গঠন করা সম্ভব হয়নি। সর্বশেষ ২০২২ সালের ১০ অক্টোবর থেকে পরিবর্তি ছয়মাসের জন্য এডহক কমিটির অনুমোদন দিয়েছেন শিক্ষাবোর্ড। যা আগামী মার্চ মাসে শেষ হবে। নিয়মিত কমিটি গঠনের জন্য কার্যক্রম পরিচালনা করছেন বলে জানান তিনি। এবিষয়ে যদুবয়রা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. মিজানুর রহমান মিজান বলেন, প্রধান শিক্ষক তাঁর পছন্দের ব্যক্তি দ্বারা বারবার এডহক কমিটি গঠন করে গাঁয়েবী নিয়োগ বাণিজ্যসহ নানা অনিয়ম করে চলেছেন। বিদ্যালয়টিতে অবকাঠামোগত উন্নয়ন ও শিক্ষার মান ভেঙে পড়েছে। বিষয়টি বারবার শিক্ষা কর্মকর্তাকে জানিয়েও কোনো ফল পাওয়া যায়নি। এবার অভিভাবকরা নিয়মিত কমিটি গঠনের জন্য ইউএনও স্যারের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন বলে জানান তিনি।
উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা কাজী এজাজ কায়সার বলেন, ওই বিদ্যালয়ের বিষয়ে তিনি কিছুই জানেন না। লিখিত অভিযোগ পেলে বিষয়টি দেখা হবে বলে জানান তিনি।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিতান কুমার মন্ডল বলেন, তিনি লিখিত অভিযোগ পেয়েছেন। তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Developer Ruhul Amin