রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১২:০১ অপরাহ্ন
নোটিশঃ
২৪ ঘন্টায় লাইভ খবর পেতে চোখ রাখুন প্রতিদিনের বাংলাদেশ ওয়েবসাইটে

দুদকের মামলায় গ্রামীণ ব্যাংক কর্মকর্তার ১০ বছরের কারাদণ্ড

Reporter Name / ১৫১ Time View
Update : বৃহস্পতিবার, ৫ জানুয়ারী, ২০২৩, ৬:৩৬ অপরাহ্ন

মোঃ জিয়াউর রহমান কুষ্টিয়া প্রতিনিধিঃ

অর্থ আত্মসাতের অপরাধে আব্দুর রহিম নামে সাবেক গ্রামীণ ব্যাংকের কেন্দ্র ব্যবস্থাপককে (বরখাস্তকৃত) পৃথক দুটি ধারায় ৬ ও ৪ বছরের সশ্রম কারাদণ্ডসহ মোট ১০ বছর কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে তাকে ২০ লাখ ও ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। জরিমানা অনাদায়ে আরও ১০ ও ৩ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।
বৃহস্পতিবার (৫ জানুয়ারি) দুপুর সাড়ে ১২টায় কুষ্টিয়া জেলা ও দায়রা জজ বিশেষ আদালতের বিচারক মো. আশরাফুল ইসলাম আদালতে ওই ব্যাংক কর্মকর্তার উপস্থিতিতে এ রায় ঘোষণা করেন।
দণ্ডপ্রাপ্ত আব্দুর রহিম কুষ্টিয়া সদর উপজেলার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) থানার হরিনারায়ণপুর শাখার গ্রামীণ ব্যাংকের কেন্দ্র ব্যবস্থাপক ছিলেন। তিনি জয়পুরহাট সদর উপজেলার বুলুপাড়া গ্রামের কামরুল ইসলামের ছেলে। আদালত সূত্রে জানা গেছে, আসামি আব্দুর রহিমকে পেনাল কোডের ৪০৯ ধারাধীনে অপরাধমূলক বিশ্বাস ভঙ্গ করার অপরাধে এবং ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫ (২) ধারাধীনে অপরাধমূলক অসদাচারনের অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত হওয়ায় তাকে প্রথম ধারায় ৬ বছর সশ্রম কারাদণ্ড এবং ৫ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড, দ্বিতীয় ধারায় ৪ বছর সশ্রম কারাদণ্ড ও ২০ লাখ টাকা জরিমানা অনাদায়ে ১০ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে।
দুদক ও আদালত সূত্রে জানা গেছে, ২০১১ সালের ৪ ডিসেম্বর হইতে ২০১২ সালের ৪ নভেম্বর পর্যন্ত আব্দুর রহিম কুষ্টিয়া সদর উপজেলার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) থানার হরিনারায়ণপুর শাখার গ্রামীণ ব্যাংকের কেন্দ্র ব্যবস্থাপক ছিলেন। দায়িত্বে নিয়োজিত থাকা অবস্থায় তিনি বিভিন্ন গ্রহীতার কাছ থেকে ১০ লাখ ৮৯ হাজার ২০৪ টাকা আদায় করে। তৎকালীন সময়ে ওই ব্যাংকে কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিকট ওই টাকা হস্তান্তর না করে অবৈধভাবে নিজেই আত্মসাৎ করেন আব্দুর রহিম।
এ অভিযোগে ২০১৫ সালের ৩১ মার্চ তার বিরুদ্ধে কুষ্টিয়ার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় থানায় মামলাটি করেন দুদক সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের কুষ্টিয়ার তৎকালীন উপ-পরিচালক শহীদুল ইসলাম মোড়ল। মামলাটি দীর্ঘ সময় ধরে তদন্তের পর আদালতে ওই মামলার চার্জশিট দাখিল করা হয়।
মামলাটি তদন্ত শেষে দুর্নীতি দমন কমিশন সমন্বিত জেলা কার্যালয় কুষ্টিয়ার উপ-পরিচালক আব্দুল গাফফার অভিযুক্ত ব্যাংক কর্মকর্তা আব্দুর রহিমের বিরুদ্ধে ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) এবং ৪ ধারায় আদালতে চার্জশীট দাখিল করেন।
দুদকের কৌঁসুলি এ্যাড. আল মুজাহিদ হোসেন জানান, গ্রামীণ ব্যাংকের বিতরণ করা ঋনের গ্রহিতাদের কাছ থেকে সংগৃহীত কিস্তির টাকা আত্মসাতের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় ৩০ জন স্বাক্ষীর স্বাক্ষ্য গ্রহণ শেষে আনীত অভিযোগ সন্দেহাতীত প্রমাণিত হওয়ায় অভিযুক্ত আব্দুর রহিমকে দু’টি ধারায় ৬ বছর ও ৪ বছর কারাদণ্ড এবং ২০ লাখ টাকা জরিমানা। অনাদায়ে আরও ১০ ও ৩ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Developer Ruhul Amin